Connect with us

    Bangla Serial

    Neem Fuler Modhu: ভাঙবে তবুও মচকাবে না! অন্যায়ের সঙ্গে আপোষ নয়! গতানুগতিক দমে যাওয়া নায়িকা চরিত্রের থেকে বেড়িয়ে সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছে পর্ণা! স্যালুট জানাচ্ছে দর্শক

    Published

    on

    Parna Srijan

    অন্যান্য ধারাবাহিকের গতানুগতিক চরিত্র থেকে একটু আলাদা চরিত্রের নায়িকাকে নিয়ে এসেছে ‘নিম ফুলের মধু’। খুব বেশিদিন হয়নি শুরু হয়েছে এই সিরিয়াল। অল্পদিনেই বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে উক্ত ধারাবাহিক। বিশেষ করে নায়িকা পর্ণার চরিত্র বেশ প্রিয় দর্শকদের। অন্যায়ের সঙ্গে আপোস না করেও পর্ণা কিভাবে পুরোনো ধারণার সঙ্গে নতুনের মেলবন্ধন ঘটাচ্ছে, তাই এখানে দেখার। তার সাহসিকতার আরও একবার প্রমান পাওয়া গেল, পর্ণা কাজের জন্য বাইরে যেতে চাইলে স্বামী সৃজন তাকে বারণ করে। কিন্তু স্বামীর কথা না শুনতে পারায় সৃজনকে ক্ষমা চায় পর্ণা, কিন্তু নিজের কাজ থেকে বিরত থাকেনি সে।

    এই পর্ণার চরিত্রে অভিনয় করছেন অভিনেত্রী পল্লবী শর্মা। সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁকে নিয়ে ট্রোলও কিছু কম হয় না। ‘কে আপন কে পর’ থেকে শুরু করে ‘নিম ফুলের মধু’ -ট্রোল একই প্রকার চলছে। যদিও তার অভিনয় পছন্দ সকলেরই। উক্ত ধারবাহিক শুরু হতে না হতেই সোশ্যাল মিডিয়ায় তিনি ট্রোলের শিকার হয়েছে ইতিমধ্যে। কিন্তু এই সকল ট্রোল তিনি পজেটিভ ভাবেই গ্রহণ করে এসেছেন।

    শুরুতেই ধারাবাহিকের একটি দৃশ্যে দেখানো হয়েছিল, নায়ক ফ্রিজ থেকে জুতো বের করে পড়ছে। আর তা দেখেই নেটদুনিয়ায় হাসির ধুম পড়ে গিয়েছিল। উল্লেখ্য, বিয়ের পর শ্বশুরবাড়িতে যৌথ পরিবারে গিয়ে প্রতিদিন নতুন লড়াইয়ের মুখোমুখি হতে হচ্ছে পর্ণাকে। আমরা জানি, বাস্তবেও এরূপ পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হয় অনেককেই। এখন এটাই দেখার বিষয়, সব বাঁধা সামলে পর্ণা কিভাবে শাশুড়ি সহ গোটা শ্বশুরবাড়িকে আপন করে নেয়!

    এতদিন শাশুড়ির অন্যায়ের শুধু প্রতিবাদ করেনি, ঘরের ভুল মানুষদের উচিত শিক্ষাও দিয়েছে পর্ণা। চুলের বদলে গামলা কিনে দিতে নিজের চুল কাটতে যাওয়া, সতীনকে জব্দ করতে সতীন কাঁটা ব্রত, বাড়ির অমত থাকা সত্ত্বেও চাকরিতে যাওয়ার জেদ, অন্যায়কে আটকাতে বহুবার সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছে পর্ণা। তাই এই চরিত্র মেয়েদের কাছেও বিশেষ প্রিয়। আমরা দেখেছি, শ্বশুরবাড়িতে শাশুড়ি-ভাসুরদের মন জয় করতে গেলে অনেকসময় নিজের ইচ্ছে-অনিচ্ছের সঙ্গে আপোস করতে হয় ঘরের বৌমাকে।

    ঠিক একই অবস্থা পর্নারও, কিন্তু এরমধ্যেও কোনও না কোনও বুদ্ধিতে নিজের মনেরটা করেই ফেলে সে। তা বাড়িতে পিকনিক হোক বা সরস্বতী পুজো কিংবা সংবাদপত্রে চাকরি। আর সেখানেই সকলের থেকে আলাদা হয়ে যায় সে। তার এরূপ চরিত্রকে স্যালুট জানিয়ে এক ভক্ত লেখেন, “তুমি নারী তুমি জাগ্রত! নিজের মতো সৎ ভাবে বাঁচার অধিকার তোমার আছে। স্বামীর অন‍্যায় আবদারের কাছে মাথা নত না করে নিজ কর্মে অবিচল পর্ণা। এই জন‍্যই গতানুগতিক নায়িকা চরিত্র থেকে পর্ণা চরিত্রটা আলাদা। ভাঙবে তবুও মচকাবে না”।