Connect with us

    Bangla Serial

    ময়ূরীর রহস্য ফাঁস! দুই বোনের সম্পর্ক শেষ, দিদিকে পুলিশে দিল মেঘ

    Published

    on

    megh mayuri in icche putul

    জি বাংলার (Zee Bangla) ‘ইচ্ছে পুতুল’ (Icche Putul) ধারাবাহিকে আসতে চলেছে বিরাট চমক। মেঘের বিরুদ্ধে একের পর এক অপরাধমূলক কাজের জন্য এবার ময়ূরীকে গ্রেফতার করবে পুলিশ। ময়ূরীর সমস্ত অপরাধ এবার প্রকাশ্যে আসতে চলেছে। শেষ মুহুর্তে মেঘের কাছে ক্ষমা চাইবে ময়ূরী! মেঘ কী করবে তাঁকে ক্ষমা নাকি অপরাধের শাস্তিস্বরূপ জেলের ঘানি টানতে হবে ময়ূরীকে? জানতে উদগ্রীব দর্শককূল।

    জি বাংলার ‘ইচ্ছে পুতুল’ ধারাবাহিকে দেখা যায় মেঘের প্রতি আক্রোশ থেকে পরপর ষড়যন্ত্রের ফন্দি আঁটে ময়ূরী। মেঘের বিবাহিত জীবনে অশান্তি বাধানো থেকে মেঘকে মদ্যপ করে তাঁর চরিত্রে কালো দাগ লাগানো, সমস্ত রকম কূ-চক্রান্তে সিদ্ধহস্ত ময়ূরী। শুধু তাই নয় মেঘকে মেরেও ফেলতে চেয়েছিল সে। এতদিন ময়ূরীর ষড়যন্ত্র সামনে না আসলেও এবার সবাই জানতে পারবে তার কুকীর্তির কথা।

    ‘ইচ্ছে পুতুল’ ধারাবাহিকের নতুন পর্বে দেখা যায় পুলিশ গ্রেফতার করতে এসেছে ময়ূরীকে। তখন ময়ূরী বলে যে মেঘ তার বোন তাই পুলিশ তাঁকে গ্রেফতার করতে পারবে না। ময়ূরীর মুখে এই কথা শুনে মেঘ গর্জে ওঠে। সে বলে, ময়ূরী মোটেও তার দিদি নয়। সে দিদি হলে আর যাই হোক তাঁকে প্রাণে
    মারতে চাইতো না।

    এরপর পুলিশ ময়ূরীকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। কিন্তু এরপরই ছিল আসল চমক। মেঘের বিরুদ্ধে নোংরা ষড়যন্ত্রে ময়ুরীর সঙ্গে হাত মিলিয়েছিল রূপ। তাই পুলিশ এবার রূপের সামনে গিয়ে বলে “জানান এনাকে কেন গ্রেফতার করা হয়েছে?” ঘটনা শুনে চিন্তিত অবস্থায় বসে পড়ে ময়ূরী। তাহলে কি শুধু ময়ূরী নয় পুলিশ গ্রেফতার করবে রূপকেও? অন্তত তেমনটাই ধারণা করছেন দর্শকরা।

    আরও পড়ুনঃ আবার‌ও নীলের জীবনে ফিরছে মেঘ! ঠাম্মির অনুরোধে মেঘকে আবারও গাঙ্গুলি বাড়িতে পাঠাতে রাজি হলেন মেঘের বাবা

    ‘ইচ্ছে পুতুল’ ধারাবাহিকটি নিয়ে যথেষ্ট প্রত্যাশা রয়েছে দর্শক মহলে। জানা যাচ্ছে, ময়ূরী ও রূপ গ্রেফতার হওয়ার পর মেঘ ও নীলের মধ্যে মিল হতে পারে। কুকীর্তির পর্দা ফাঁস ও মেঘ-নীলের মধ্যে মিল দেখিয়ে শেষ হতে পারে জি বাংলার জনপ্রিয় এই ধারাবাহিক। কানাঘুষো খবর, আর কিছুদিনের মধ্যেই ‘ইচ্ছে পুতুল’ সমাপ্ত হয়ে নতুন সিরিয়াল আনবে জি বাংলা। যদিও সত্যিই এই ধারাবাহিক শেষ হবে নাকি, তা নিয়ে কোনোও আভাস দেয়নি চ্যানেল কর্তৃপক্ষ।