BollywoodTollywood

শোকসংবাদ! ফের নিজের কাছের মানুষকে হারিয়ে শোকস্তব্ধ অরিজিৎ সিং!

বলিউডের (Bollywood) অতি জনপ্রিয় গায়ক অরিজিত সিং (Arijit Singh)। যার গানের মুগ্ধ সারা বিশ্ব। একের পর এক জনপ্রিয় অর্জন করেছে তার গান। প্রতিটি মানুষের স্মৃতিতে গাঁথা তার গানের প্রত্যেকটা শব্দ। কিন্তু বাস্তব জীবনে তিনি অন্যরকমের এইটি মানুষ। আকাশ ছোঁয়া তার জনপ্রিয়তা হলেও তিনি ভুলে যাননি আর শিকড়কে। তার পা আজও আছে মাটির সঙ্গেই। অর্থের অভাবে নেই তার কিন্তু সেই অর্থের অহংকার বা অযত্ন করেননা তিনি। থাকেন না মুম্বাইয়ের বিলাসবহুল ফ্ল্যাটে, আজও তার ঠিকানা মুর্শিদাবাদের জিয়াগঞ্জ।

অতি সাধারণ তার জীবন। পাড়ার দোকানে বসে চা থাক, আড্ডা দেন পাড়ার কাকা, জেঠুর সঙ্গে। আর পাঁচটি বাবার মতোই ছেলেকে স্কুলে দিতে যান তিনি। আর পাঁচটা সাধারণ বাড়ির ছেলের মতোই সকালে উঠে বাজারে যান তিনিও। কোনও বড় মার্সিডিজে নয়, বউ, ছেলে নিয়ে তিনি যাতায়াত করেন স্কুটিতে। তিনি নিজেকে মনে করেন আর পাঁচটা সাধারণ মানুষের সমান। সাধারণ মানুষের জন্যই তিনি করেছেন অনেক কিছু।

মায়ের নামে তার রয়েছে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা। জিয়াগঞ্জে ইংরেজি শিক্ষার প্রসার, হাসপাতাল নির্মাণ, বিদ্যালয় নির্মাণ, খেলার মাঠ সংস্করণ সবই করেছেন তিনি। মায়ের নামে স্কুলও নির্মাণ করছেন তিনি। তবে তার জীবনে নেমে এসেছে দুঃখের সময়। সম্প্রতি তিনি হারিয়েছেন তার মা অদিতি সিংকে। সেই দুঃখ ফিকে হতে না হতেই তিনি হারালেন তার আরও এক প্রিয় মানুষকে। রবিবার দুপুরে পরলোক গমন করেছেন অরিজিৎ সিংয়ের দিদা ভারতী দেবী।

Coronavirus Update: Singer Arijit Singh mother is died today fighting with covid19 Arijit Singh Mother Death :  प्रख्यात पार्श्वगायक अरिजीत सिंहच्या आईचे निधन

বর্তমানে তার বয়স ছিল ৮২ বছর। বার্ধক্য জনিত কারণেই মৃত্যু বরণ করেন তিনি। সেই সংবাদ শুনেই রবিবার বিকাল ৪টে নাগাদ স্ত্রী কোয়েল রায়কে নিয়েই তিনি পৌঁছান জিয়াগঞ্জ শ্মশানে। স্কুটিতে স্ত্রী আর তিনি যাচ্ছিলেন একজায়গায় দিদার মৃত্যু সংবাদ পেতেই সেই স্কুটিতেই শ্মশানে পৌঁছান অরিজিৎ। দিদার খুব কাছের ছিলেন তিনি। মায়ের মৃত্যুর পর দিদাই ছিল তার সব। রবিবার দুপুরে বার্ধক্য জনিত কারণে মারা যান তিনি আমরা সকলেই শ্মশানে এসেছে জানিয়েছেন অরিজিৎ সিংয়ের বাবা। দিদার মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ গায়ক। অরিজিৎ সিংয়ের দিদা ভারতী দেবীর আত্মার শান্তি কামনা করি।

Ruhi Roy

রুহি রায়, গণ মাধ্যম নিয়ে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর পাশ। সাংবাদিকতার প্রতি টানে এই পেশায় আসা। বিনোদন ক্ষেত্রে লেখায় বিশেষ আগ্রহী। আমার লেখা আরও পড়তে এখানে ক্লিক করুন।