Bangla Serial

কৃষ্ণার চোখ রাঙানি উপেক্ষা করে শেষমেশ পিকলু আর বর্ষার বিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল পর্ণা! নিম ফুলে বিরাট চমক

জি বাংলার (Zee Bangla) জনপ্রিয় ধারাবাহিক নিম ফুলের মধু (Neem Phooler Madhu)। ধারাবাহিকে একের পর এক চমকের কারণে ধারাবাহিকটি জগদ্ধাত্রীকেও পিছনে ফেলে অর্জন করেছে তাদের নিজের প্রথম স্থান। ইতিমধ্যেই অর্ণবের বাড়ির লোক চলে আসছে বর্ষাকে দেখতে। প্রথমেই জেঠি বলেন তাদের খাওয়া দাওয়া করতে কিন্তু নবনীতা বলে প্রথমে তারা কনে দেখতে চায়। তখনই বর্ষাকে নিয়ে চলে আসে কৃষ্ণা। বর্ষাকে প্রথমবার দেখেই খুব পছন্দ হয় অর্ণবের।

অর্ণবের বোনও বেশ পছন্দ করে ফেলে বর্ষাকে। সে বলে বর্ষাকে খুব সুন্দর দেখতে কিন্তু তখনই তাকে ধমক দিয়ে থামিয়ে দেয় নবনীতা। সে বলে এখানে তার সিদ্ধান্তই শেষ কথা। সে যা বলবে তার ছেলে অর্ণবও তাই করবে। একথা শুনেই আর কেউই কিছু বলতে পারেনা। তখন কৃষ্ণাও বলে সেও তার বাবুকে ওইভাবেই মানুষ করেছে। সেও তার কথা শুনেই চলে। তখন পর্ণা ধীরে ধীরে রুচিরাকে বলে আরেক বাবু এসেছে। তখন পর্ণার দিকে কটমট করে তাকায় সৃজন।

যদিও এইসব কিছুই ভালো লাগছিল না বর্ষার। সে ভাবতে থাকে পিকলুর কথা। তখন অর্ণবের বাবা খাওয়ার খেতে গেলে তাকে আটকে দেয় নবনীতা। তিনি বলেন তারা এত তেলেভাজা খান না। তারা আগে বর্ষাকে দেখতে চান। তখন এইসব দেখে জেঠুকে জেঠি জিজ্ঞাসা করে কেমন মনে হচ্ছে। জেঠু বলেন তিনি বুঝে গেছেন এই মেয়েছেলের কথায় বাড়িতে সবাই ওঠে বসে। জেঠু এও বলেন তিনি খালি অপেক্ষা করছেন পর্ণা কি ভাবছে জানার জন্য কারণ পর্ণাই ভালো লোক চিনতে পারে।

তারপর নবনীতা বলে তারা ৩ দিনের মধ্যেই বিয়ে দিতে চান কারণ তারপর তার ছেলে মেক্সিকোতে চলে যাবে। বর্ষার পরীক্ষার কথা পর্ণা বললে তিনি বলেন তার ছেলে একা যাবে বর্ষাকে নিয়ে যাবে না। যেটা শুনেই খটকা বেড়ে যায় পর্ণার। এত তাড়াতাড়ি সব কি করে হবে এটা জিজ্ঞাসা করলে কৃষ্ণা পর্ণাকে থামিয়ে বলে সব হয়ে যাবে। ৩ দিন পরই বিয়ে হবে তাদের। এরপর খাওয়ায় দাওয়া করে চলে যায় অর্ণবের পরিবার। কিন্তু পর্ণার মনে সন্দেহ থেকে যায় কিন্তু সে কিছু করতেও পারছে না।

পরেরদিন পর্ণা বুঝতে পারে পিকলু মনে মনে কষ্ট পাচ্ছে তাই কাজ করছে। কিন্তু পিকলুকে গিয়ে পর্ণা জিজ্ঞাসা করলে পিকলু বলে সে বলে সব ঠিক আছে। বর্ষার কাছে গিয়ে তাকে বেশি বেশি করে হলুদ মাখাতে থাকে পিকলু। সৃজন পর্ণাকে চিন্তিত দেখে বুঝতে পারে সবটা। কিন্তু সে পর্ণাকে বলে পিকলু কিছু না বললে তারা কিছু করতে পারবে না। ওদিকে লুকিয়ে কাঁদতে থাকে পিকলু। সে মনে মনে ভাবে পর্ণাকে গিয়ে সবটা বলে দেবে সে। আর পর্ণাও ভাবে পিকলু এবার বললে সে এই বিয়েটা ভেঙে তাদের বিয়ে দিয়ে দেবে। তাহলে কি মনে হয় আপনাদের পর্ণা কি সত্যিই পারবে পিকলু আর বর্ষার বিয়ে দিতে?

Ruhi Roy

রুহি রায়, গণ মাধ্যম নিয়ে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর পাশ। সাংবাদিকতার প্রতি টানে এই পেশায় আসা। বিনোদন ক্ষেত্রে লেখায় বিশেষ আগ্রহী।