Bangla Serial

সোনা-রূপাকে নিয়ে চলে যাওয়ার সময় এয়ারপোর্টে সূর্যকে আটকে আসল রিপোর্ট সামনে আনল কবির! গল্পের নতুন চমক ফাঁস

সম্প্রতি ‘অনুরাগের ছোঁয়া’তে (Anurager Chhowa) আসছে একের পর এক ধামাকাদার পর্ব। সোনা-রূপাকে নিয়ে সূর্য ও দীপার মধ্যে যেন যুদ্ধ চলছে। একবার দীপা তাদের নিয়ে দূরে চলে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিচ্ছে, একবার সূর্য দীপার থেকে তাদের ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছে। এদিকে সূর্য ও দীপার মাঝে পড়ে শোচনীয় অবস্থা সোনা ও রূপার। স্টার জলসার (Star Jalsha) জনপ্রিয় এক চর্চিত ধারাবাহিক হল ‘অনুরাগের ছোঁয়া’। দর্শক চাইলেও লেখক এখনই সূর্য (Surjyo)দীপার (Deepa) মিল করাতে প্রস্তুত নয়। তিনি গল্পে আনতে চান আরও ট্যুইস্ট। সূর্য ও দীপার মধ্যে সমস্যার দরুন কষ্ট পাচ্ছে তাদের খুদে দুই সন্তান।

সন্তানদের এরূপ অবস্থা দেখে এবার দীপা নিল এক কঠিন পদক্ষেপ। সেনগুপ্ত বাড়ির সকলেই সূর্য-দীপাকে এক করার জন্য উঠেপড়ে লেগেছে। কিন্তু মিশকা দিনের পর দিন সূর্যকে ঠকিয়ে চলেছে। আর সূর্য তারই কথা বিশ্বাস করে চলেছে। উল্লেখ্য, প্রথম থেকেই বাংলার সেরা তকমা পেয়ে আসছে এই ধারাবাহিক। যদিও বর্তমানে একইরকমের কিছু পর্বের জন্য বোরিং হয়ে উঠেছে ধারাবাহিক। বারংবার শোনা গিয়েছে, গল্পে খুব শীঘ্রই আসবে নতুন মোড়। কিন্তু দর্শকদের সেই আশা ভঙ্গ হয়েছে বহুবার। সূর্য এখনও জেদের বশে অন্ধ হয়ে বসে রয়েছে।

বেশ কিছুদিন আগেই সূর্য জানতে পেরেছে সোনা ও রূপা যমজ। কিন্তু মিশকার কথায় সে মনে করেছে সোনা – রূপা দীপা ও কবিরের সন্তান। যার দরুন সে এখন মনে মনে অনেক কষ্ট পাচ্ছে। পাশাপাশি এই কথা লুকিয়ে রাখার জন্য সকলের উপর তার বেজায় রাগ। দীপার প্রতি ভালোবাসা থাকলেও পুরোনো কিছু ভুল ধারণার জন্য আজ সূর্য ও দীপা দুজনের জীবনই অতিষ্ট হয়ে উঠেছে। প্রথম থেকেই সূর্য ও দীপার মধ্যে এই দূরত্ব তৈরী হওয়ার কারণ মিশকা, যে সূর্যের বেস্ট ফ্রেন্ড ছিল। মিশকাই সূর্যের করানো রিপোর্ট বদলে দিয়েছিল, আর তাতে লেখা ছিল সূর্য কোনোদিনও বাবা হতে পারবে না।

আমরা দেখেছি, সূর্য সকলের সামনে নিজের নতুন সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করেছে। সূর্য মিশকাকে বিয়ে করতে চায়। মিশকার সাথেই নতুন জীবন শুরু করতে চায়। সবকিছু এভাবে শেষ হতে দেখে দীপা এবার নিল কঠিন পদক্ষেপ। সে সেনগুপ্ত বাড়িতে এসে সোনার সব জিনিস নিয়ে চলে যায়। দীপা সিদ্ধান্ত নেয়, এভাবে সোনা-রূপাকে আর সে কষ্ট পেতে দেবে না। সূর্য ও দীপার জন্য আজ তারাও ভুল শিখছে। তাই সে সিদ্ধান্ত নেয় সব ছেড়ে সোনা-রূপাকে নিয়ে অনেক দূরে চলে যাবে। লাবণ্য বারণ করলেও দীপা আর শুনতে চায় না কিছুই। দীপা সবকিছু গুছিয়ে সোনা ও রূপাকে রেডি করে চলে যাওয়ার জন্য।

সোনার কথা বারংবার মনে পড়ার জন্য সূর্য দীপার বাড়ি যায় তাদের সঙ্গে দেখা করার জন্য। কিন্তু দীপা সূর্যকে ঘরে ঢুকতে দেয় না। এদিকে দুই সন্তান তাদের বাবার সঙ্গে শেষবারের মতো দেখা করার জন্য ব্যাকুল হয়ে উঠেছে। দীপা দুই সন্তানের টিসি করানোর জন্য স্কুলে যায়, আর তখন সোনা ও রূপা বাবার সঙ্গে দেখা করার জন্য সূর্যের চেম্বারে যায়। সোনা-রূপার কথা শুনে সূর্য তাদের নিয়ে চলে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। এদিকে বাড়ি ফিরে সোনা ও রূপাকে না দেখতে পেয়ে দীপা চিন্তায় পড়ে যায়। পাশাপাশি সূর্যকেও খুঁজে পাওয়া যায় না। দীপা বুঝতে পারে সূর্য তাদের নিয়ে চলে যাচ্ছে। এদিকে এয়ারপোর্টে কবির সূর্যকে দেখে সব বুঝতে পারে ও তাকে আসল রিপোর্ট দেখিয়ে সব সত্যি সামনে আনে। তবে কি এভাবেই কবির সূর্যকে আটকে দেবে নাকি সব সত্যি সামনে আসার আগেই সূর্য আরও বড় ভুল করতে চলেছে?

Rimi Datta

রিমি দত্ত কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর। কপি রাইটার হিসেবে সাংবাদিকতা পেশায় চার বছরের অভিজ্ঞতা।