Bangla Serial

দোলের দিনেই শাঁখা সিঁদুর মুছে জীবিত স্বামীকে মেরে ফেললো বিপাশা! চমকে দেওয়া পর্ব আসছে

Shimul-Bipasha: জি বাংলার (Zee Bangla) জনপ্রিয় ধারাবাহিক কার কাছে কই মনের কথায় (Kar Kache Koi Moner Kotha) ইতিমধ্যেই দেখা গেছে তুতুল তার বন্ধুবান্ধবী নিয়ে এসেছে ব্যানার্জী বাড়িতে। সুচরিতা আর শীর্ষার সেইসময় শিমুল(Shimul) কথা বলছিল। শিমুলকে এইভাবে দেখে তুতুল বলে তাকে রেডি হতে তারা আজ সবাই মিলে একসঙ্গে হোলি খেলবে। তখন শিমুল বলে সে যেভাবে আছে সেটাই ভালো আছে আর সে তৈরি হতে পারবে না।

তখন তীর্থ আর পুতুল চলে আসে নিচে। সবাইকে দেখে পুতুল বলে সবাই কত সুন্দর ভাবে সেজেছে। কিন্তু তখনই পুতুল শিমুলকে বলে তৈরি হয়ে নিতে। তখন শিমুল বলে তাকে এমনি ভালো লাগছে সে আর সাজতে পারবে না। তখন মধুবালা দেবী বলেন তাদের দেখতে কত সুন্দর লেগেছে। সবাইকে এইভাবে দেখে তিনি খুব খুশি হয়েছেন। সেটা শুনেই তীর্থ বলে আজকের দোলের অনুষ্ঠানে পুতুল গান করবে আর সবাই নাচবে। সেটা শুনে সবাই খুব খুশি হয়।

তুতুল বলে তাহলে খুব ভালো হবে। তার বন্ধবান্ধব সহ তারা সকলে মিলে নাচবে আর পুতুল গান গাইবে। সেটা শুনে পুতুল বলে তার স্যার যখন বলেছে সে নিশ্চয়ই গান করবে। তখনই চলে আসে বিপাশা(Bipasha)। হাতে শাখা পলা নেই, মাথায় সিঁদুর নেই। তাকে দেখে শিমুল বলে তার এই অবস্থা কেন হল। তখন বিপাশা বলে যে মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক নেই। তার নামে এই মিথ্যে মিথ্যে শাখা সিঁদুর সে পড়বে না। সেটা শুনে সুচরিতা বলে বিপাশা একদম ঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে মেয়েরা সবসময় সবার কথা ভেবে এসেছে কিন্তু এবার সময় এসেছে নিজের কথা ভাবার।

শিমুলও বলে বিপাশা ভালো করেছে। সে ওই বাড়ি ছেড়ে যাবে না কারণে ওই বাড়িতে তারও অধিকার আছে। আর মেয়েদের এবার নিজের মনের কথা শুনতে হবে। কারণ নিজে ভালো না থাকলে কাউকে ভালো রাখা যায়না। তখনই বিপাশাকে দেখে মধুবালা দেবী বলেন বিপাশার এই অবস্থা কেন? তখন বিপাশা বলে একজন স্ত্রী তার স্বামীর মঙ্গলের জন্য শাখা সিঁদুর পড়ে কিন্তু এখন চন্দনের জন্য শাখা সিঁদুর পড়ার জন্য মধুরিমা এসেছে তাই একজন মানুষের জন্য দুজনের শাখা সিঁদুর পড়ে লাভ নেই।

আরো পড়ুন: বড় খবর! জগদ্ধাত্রী ধারাবাহিক ছাড়ছেন স্বয়ম্ভু অর্থাৎ অভিনেতা সৌম্যদীপ মুখার্জী! নেপথ্যে কী তবে মন কষাকষি?

তখন মধুবালা দেবী বলেন তিনি শুধু চান তারা সবাই যেন ভালো থাকে। তীর্থও তখন ওপরে গিয়ে পরাগকে নিয়ে আসে। শিমুল মধুবালা দেবীকে বলে কি হবে ভবিষ্যতে সেকথা বলা যাচ্ছে না তাই পরাগের সকলের সঙ্গে সময় কাটান দরকার। সেটা শুনে খুব পায় মধুবালা দেবী। যদিও পরে তাকে বুঝিয়ে বলে শিমুল। তারপর সবাই চলে যায় রঙ খেলতে। পুতুল গান করে আর সেই গানে সবাই নাচ করে। কিন্তু অনুষ্ঠানে পরাগ বারবার চেষ্টা করতে থাকে শিমুলকে তার চাকরিটা নেওয়া জন্য কিন্তু শিমুল কোন উত্তর দেয়না। তাহলে কি এবার পরাগকে বিয়েটা করবে শিমুল?

Ruhi Roy

রুহি রায়, গণ মাধ্যম নিয়ে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর পাশ। সাংবাদিকতার প্রতি টানে এই পেশায় আসা। বিনোদন ক্ষেত্রে লেখায় বিশেষ আগ্রহী।