Connect with us

    Bangla Serial

    উৎসবকে দারুণ শবক শেখালো স্বয়ম্ভু! উচিত শিক্ষা দিয়ে গ্রেফতার করল সে! জগদ্ধাত্রীতে ধামাকা পর্ব

    Published

    on

    utsab swyambhu jagadhatri

    জি বাংলার (Zee Bangla) ধারাবাহিকগুলিতে আসছে একের পর এক চমক। টিআরপিও বাড়ছে দ্রুতগতিতে। একের পর এক মোড় ঘোরানো পর্ব, চোখের পলক ফেলাও যেনো দায়। দর্শকদের দারুণভাবে আকৃষ্ট করছে ধারাবাহিকগুলি। সেই তালিকা থেকে বাদ যায়নি। ব্লুস প্রোডাকশনের অঙ্কিতা মল্লিক, সৌম্যদীপ মুখার্জী ও রূপসা চক্রবর্তী অভিনীত ধারাবাহিক জগদ্ধাত্রী(Jagaddhatri) ধারাবাহিক।

    ধারাবাহিকটি শুরুর থেকেই দর্শকদের দৃষ্টি আকর্ষণে সক্ষম হয়েছে। একের পর এক ঝড় উঠেছে জগদ্ধাত্রীর ওরফে জাস এর জীবনে। পর্বের শুরুতেই দেখা যায় জগদ্ধাত্রী কথা বলছে বৈদেহী মুখার্জী সাথে রাজনাথ মুখার্জী অ্যাকাউন্ট থেকে ১০ লক্ষ্য টাকা তোলা তিনি দিয়েছিলেন উৎসবকে। যদিও এই বিষয়ে কিছুই জানেন না বৈদেহী। তবে জগদ্ধাত্রী বলে যে ক্রাইমের দুনিয়ার উৎসবের নাম যেভাবে ছড়িয়েছে আবার কেউ উৎসবকে বাঁচাতে পারবে না। তখন বৈদেহী কে ফোন করছো জিজ্ঞাসা করতে জগদ্ধাত্রী ফোন কেটে দেয়।

    বৈদেহী উৎসবকে ডেকে এই ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করতে সে কিছু বলতে পারেনা তখন বৈদেহী রাজনাথকে ফোন করতে যায় কিন্তু মেহেন্দি তাকে আটকে বলে উৎসব কেন তার বাবার থেকে টাকা নিয়েছে সেটা অনেক জানতে হবেনা। বৈদেহী মেহেন্দিকে এরকমভাবে কথা বলতে বারণ করে কিন্তু সে কিছুই শোনে না। তখন বৈদেহী তাকে বলে কৌশিকীর চেয়ার তাকে দেবে নাকি ভাববেন। তখন মেহেন্দি বলে ওটা আমায় হয়েই গেছে ধরেন। প্রীতি মেহেন্দিকে আটকাতে গেলে মেহেন্দি প্রীতিকে অপমান করে দেবুকে নিয়ে।

    সেকথা শুনে দেবু উৎসবকে সাবধান করে বলে মেহেন্দিকে চুপ করতে আর তার ভাগ তাকে দিয়ে দিতে নাহলে এই উত্তরবঙ্গের দেবু কি করতে পারে সে জানে না। তখন উৎসব ভাবে যে সেই টাকা গিয়ে এসেছিল গুন্ডাগুলোকে আর রাজনাথ মুখার্জীর নাম নিয়েছিল আর তারই ফোন নম্বর দিয়েছিল।

    বৈদেহী জিজ্ঞাসা করতে উৎসব বলে এই বাড়ির শত্রুকে সরিয়েছিল আমি। মেহেন্দি, বৈদেহী তাকে জিজ্ঞাসা করতে সে বলে সে জগদ্ধাত্রী ওরফে জাসকে সরিয়েছে। আর কিছু সে একজন বলেন না সময় আসলে বলবো। সেই কথা শুনে নেয় সানভি আর মনে মনে উৎসবকে খারাপ বলে।

    পরবর্তী দৃশ্যে দেখা যায় রাজনাথ মুখার্জী ভাবছেন আর সেখানে উপস্থিত হয়েছে কফি হাতে স্বয়ম্ভু। স্বয়ম্ভুকে দেখে মেজাজ করে ওঠে রাজনাথ তখন সানভি বলে সে স্বয়ম্ভুকে এখানে ডেকেছে। একমাত্র স্বয়ম্ভুই তার খেয়াল রাখে। তখন স্বয়ম্ভু বলে রাজনাথের নামে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়েছে তবে স্বয়ম্ভু তার বয়ান নিতে চায় কিন্তু রাজনাথ রাজি হয়না। স্বয়ম্ভু মনে মনে ভাবে উৎসবকে কেউ আর বাঁচাতে পারবে না।

    তখন স্বয়ম্ভুকে ফোন করে জগদ্ধাত্রী কিন্তু স্বয়ম্ভু বলে রাজনাথ মুখার্জী সহজ করছেন না। কে ফোন করেছে রাজনাথ জিজ্ঞাসা করায় স্বয়ম্ভু বলে বস কিন্তু তিনি স্বয়ম্ভু ফোন কেড়ে নেন আর কে জিজ্ঞাসা করতে জগদ্ধাত্রী প্রণাম নেবেন বলে ফোন কেটে দেয়। রাজনাথের গলা শুনে সেখানে আসে উৎসব, দেবুদা, চন্দ্রবদন আসে স্বয়ম্ভুকে অপমান করেন, বলেন রাজনাথ উত্তর দেবে না কিন্তু দেবুদার কথায় স্বয়ম্ভু বলে এই বাড়ির আগাছা সে কেটে দেবে তখন রাজনাথ তাকে চড় মারে।

    তখন স্বয়ম্ভু রাজনাথকে গ্রেফতার করতে গেলে জগদ্ধাত্রী বাধা দেয় আর বোঝাতে বলে কিছু উৎসব বলে বাবা কিছু বলবে না তখন স্বয়ম্ভু বলে তাহলে তোকেই গ্রেফতার করবো তখন উৎসব ভয় পেয়ে যায়।