Connect with us

    Bangla Serial

    নিম ফুলের মধুতে আসছে ধামাকা পর্ব! বাড়ি বাঁচানোর উপায় পেল পর্ণা! মৌমিতা আর অয়নের মুখোশ খুললো সৃজন

    Published

    on

    parna srijan moumita ayan

    জি বাংলার (Zee Bangla) নিম ফুলের মধু (Neem Phooler Madhu) ধারাবাহিকে চলছে ধামাকা পর্ব। ঈশার পর্ণার জীবনে নিয়ে আসছে একের পর এক সমস্যা, তার সাথে আছে মৌমিতা আর অয়ন। যারা প্রতিনিয়ত চেষ্টা করছে পর্ণাকে ফাঁদে ফেলার। ইতিমধ্যেই অনেক কিছু ঘটে গেছে পর্ণার জীবনে। তবে সব কিছুর পরও কৃষ্ণা বিরোধিতা করছে পর্ণার।

    সম্প্রতি আমরা দেখেছি বাজুরিয়ার টাকা মিটিয়ে দিয়েছে পর্ণা। তবে তাতেও সমস্যা মেটেনি পুরোপুরি। এখনও ছাড়াতে হবে জেঠুর দোকান, পর্ণার মাথায় এখন গুরু দায়িত্ব। এই পর্বে দেখা যাচ্ছে সেরকমই পরিস্থিতি। পর্বটির শুরুতেই আমরা দেখছি স্বপ্ন দেখে চিৎকার করে ঘুম ভাঙলো পর্ণার, পর্ণা র চিৎকার শুনে সৃজন তাকে জিজ্ঞাসা করে কি হয়েছে তার, পর্ণা উত্তর দেয় যে সে একটা খুব খারাপ স্বপ্ন দেখেছে, সে বলে যে সে অনুভবের কাছ থেকে টাকা ধার নিয়ে বাড়ি ছাড়িয়েছে এটা শোনা মাত্রই সৃজন তার ওপর রেগে গেছে।

    সৃজন তাকে শান্ত করে বলে সে পর্ণাকে বিশ্বাস করে। সে পর্ণা ও অনুভবের প্রতি কৃতজ্ঞ, তারা বারবার দত্ত বাড়িকে বাঁচিয়েছে, সে আর কখনও পর্ণাকে অবিশ্বাস করবে না। তখনই তারা চিৎকার শুনতে পায় নীচ থেকে এবং সেখানে গিয়ে তারা দেখে অখিলেশ দত্ত চিৎকার করছে, সে পর্ণাকে বলে তার কথায় সে সৃজনকে দোকানে রেখেছিল এখনও পর্ণা তার কথা মতো যেনো তাকে তার দোকান ফিরিয়ে দেয় এবং উকিলের টাকা জোগাড় করে দেয়। সেই কথায় কৃষ্ণা সহমত হলে থাম্মি এবং সৃজনের বাবা তাকে বাজুরিয়ার কথা বলে চুপ করিয়ে দেয়।

    তখন জেঠু আবার টাকার কথা বললে অয়ন পর্ণাকে বাড়ি বিক্রি হতে না দেবার কথা বলে অপমান করে, এর প্রতিবাদে সৃজন বললে যে তারা যা করেছে তাদের জেলে পাঠানো উচিত তখন অয়ন প্রথমে চমকে ওঠে তারপর রেগে গিয়ে সৃজনের কলার ধরে, সৃজনের সাথে অয়নের হাতাহাতি হয়। তাদের থামিয়ে ঠাম্মি বলেন উকিল ডাকতে, তিনি বাড়ি বিক্রি করে দেবেন।

    এই বলে ঠাম্মি তার ঘরে চলে যায় এবং পর্ণাও ঠাম্মির কাছে গিয়ে কান্নাকাটি করতে থাকে। তখন পর্ণা ঠাম্মিকে বলেন যে সে দত্ত বাড়িকে তার কথা মতো বাঁচাতে পারেনি। তখন ঠাম্মি তাকে বুঝিয়ে বলেন যে সে যা করেছে অনেক। তিনি তার বড় ছেলে এবং অয়নের কথায় বাড়ি বিক্রি কথা চিন্তা করেছেন। এই কথা শুনে পর্ণা ব্যাগ নিয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যাচ্ছিল তখন সৃজন তাকে আটকায় এবং কোথায় যাচ্ছে জিজ্ঞাসা করে। তখন পর্ণা বলে একটা ব্যবস্থা করবে সে।

    তখনই দত্ত বাড়িতে আসে সৃজনের বন্ধু বাকু, সে সৃজনের পিঠে মেরে মেরে তার বেনারসের ঘুরতে যাবার কথা বলে, বাকু কথায় বুদ্ধি খেলে যায় পর্ণার মাথায়। কি বুদ্ধি খেলেছে পর্ণা র মাথায়? সে কি পারবে দত্ত বাড়ি বিক্রি হওয়া আটকাতে? জানতে হলে নজর রাখতে হবে টিভির পর্দায়।