Food

তপ্ত গরমে শরীরে জলের ঘাটতি হচ্ছে? শরীরে জলের ভারসাম্য বজায় রাখতে চটজলদি বানিয়ে ফেলুন সুস্বাদু কালোজিরে-শসার ঘন্ট

চৈত্র মাস পড়তে না পড়তেই গরমে নাজেহাল অবস্থা প্রায় সকলেরই। এই গরমে লু লাগার হাত থেকে নিজেকে রক্ষা করতে প্রয়োজন এইরকম খাওয়ার যা ঠান্ডা রাখবে আমাদের শরীরকে, মিটাবে শরীরে জলের ঘরটি। শরীরকে ঠান্ডা করতে প্রায় সব বাড়িতেই হয়ে থাকে সূক্ত ও লাউ ঘন্ট। তবে গরমকালে বেশি তেল, ঝাল মশলা দিয়ে রান্না পছন্দ করেননা অনেকে। সকলেই চান একটু হালকা খাওয়ার কারণ এই গরমে বেশি রিচ খাওয়ার মানেই শরীর হবে অসুস্থ।

তাই সকলেই চেষ্টা করে পাতলা ঝোল অর্থাৎ বেশি মশলা ছাড়া স্বাস্থ্যকর খাওয়ার। আর গরমকালে শরীরকে সুস্থ রাখতে শসার বিকল্প খুব কমই আছে বাজারে। তাই আমরা আজকে আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছে মশলা বিহীন ঘন্ট। যা আপনাদের জন্য স্বাস্থ্যকর অথচ এতটাই সুস্বাদু যে বাড়ির সকলেই খাবে চেটে পুটে। তাহলে চলুন প্রথমেই দেখে নিই কি কি গুন করেছেন শসায়।

প্রথমেই আপনাদের বলি আমাদের শরীরে যে সমস্ত ভিটামিনের প্রয়োজন আছে সেগুলো সবই বিদ্যমান শসায়। শসায় উপস্থিত ভিটামিন এ, বি এবং সি আমাদের শরীরে বৃদ্ধি করে রোধ ক্ষমতা। প্রতিদিন শসা খেলে কিডনিতে পাথর সৃষ্ট হলে সেটা গলিয়ে যায় এবং দীর্ঘমেয়াদি কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়। শসায় বিদ্যমান জল আমাদের শরীরে বিষাক্ত এবং বর্জ্য পর্দাথ শরীর থেকে বের করে দেয়। এছাড়াও ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে এবং ক্যান্সার প্রতিরোধ গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করে শসা। ওজন কমাতে অভ্যর্থ টনিক শসা। শসা আমাদের হজমশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। এবার দেখা যাক কি কি উপকরণ লেগেছে শসার ঘন্ট বানাতে।

উপকরণ:

খোসা ছাড়ানো ছোট ছোট টুকরো করা শসা
চেরা কাঁচালঙ্কা
কালোজিরে: সামান্য
হলুদ: পরিমাণ অনুযায়ী
লবণ: স্বাদ অনুযায়ী
চিনি: সামান্য
তেল: পরিমাণ অনুযায়ী
ঘি: সামান্য

প্রণালি:

তবে প্রথমেই বলে দিল এক্ষেত্রে কচি শসা নয়। বরং বাজার থেকে বুড়ো শসা নিয়ে আসবেন। বাজারে সবজি বিক্রেতাদের কাছেই পেয়ে যাবেন বুড়ো শসা। সেটা দিয়েই রেঁধে ফেলুন কালোজিরে শসার ঘন্ট। রান্না করার জন্য প্রথমেই গ্যাসে পাত্র বসিয়ে তাতে দিয়ে দিন পরিমাণ মতো তেল। তেল গরম হলে তাতে দিতে দিন চেরা কাঁচালঙ্কা। এরপর ফোড়নের জন্য কালোজিরে দিয়ে নাড়াচাড়া করে নিন। তবে খেয়াল রাখতে হবে লঙ্কা যেন পুড়ে না যায়। তারপর তাতে দিয়ে দিন ছোট ছোট করে কাটা শসা। এবার সেটাকে দিয়ে দিন পরিমাণ অনুযায়ী লবণ, চিনি এবং হলুদ।

আরো পড়ুন: জন্মদিন হোক বা বিবাহবার্ষিকী! বিশেষ দিনে সকলের জন্য বাড়িতেই বানিয়ে ফেলুন বিশেষ রেসিপি কোলাপুরী মটন, রইল রেসিপি

এবার ভালো করে নেড়েচেড়ে নিন যাতে মশলাগুলো ভালো করে মিশে যায় এবং শসাগুলো ভালো করে ভেজে নিন। তবে খেয়াল রাখবেন এতে যেন কিছুতেই জল না দেওয়া হয়। কারণ শসা থেকেই যে জল বেরোবে তাতেই শসাগুলো ভালো করে সেদ্ধ হয়ে যাবে। শোসাগুলো ভালো করে ভাজা হয় গেলেও বুঝবেন শসাগুলো সেদ্ধ হয়ে গেছে। ভালো মতো করে সেদ্ধ হয়ে গেলে ওপর থেকে ঘি ছড়িয়ে দিলেও রেডি কালোজিরে শসার ঘন্ট। গরমে মধ্যাহ্ন ভোজনে ভাত বা নৈশ ভোজের রুটির সঙ্গে মশলা ছাড়াই বানিয়ে ফেলুন এই কোলাজিরে শসার রেসিপি। একেবারে দারুন।

Ruhi Roy

রুহি রায়, গণ মাধ্যম নিয়ে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর পাশ। সাংবাদিকতার প্রতি টানে এই পেশায় আসা। বিনোদন ক্ষেত্রে লেখায় বিশেষ আগ্রহী।