Food

একেবারে ভিন্ন! চটপট বানিয়ে ফেলুন ফলের বীজের চপ-কাটলেট, বানানো খুব সহজ, রইল রেসিপি

আমরা সকলের সন্ধ্যার সময় স্ন্যাকস নিয়ে খুব চিন্তিত থাকি। জোর জোর কি এমন করা যায় যা স্বাস্থ্যকর, অথচ সুস্বাদু। খানিক পেটও ভরবে তবে খুব সহজেই বানাতে পারবো কোনও ঝামেলা ছাড়াই। ফলের বীজের মধ্যে কাঁঠাল তো অনেকেই খেয়েছেন। কাঁঠালের বীজের নানা খাওয়ার হয়তো খেয়েছেন তবে এই ফল বীজ দিয়েও এত সুন্দর একটা খাওয়ার হয় সেটা আপনাদের জানাব এখন। বানানোও সহজ, পুষ্টিকর যা আপনারা আপনাদের বাড়িতে আচমকা অতিথি আসলেও করতে পারেন আবার নিজের পরিবারের জন্যও করতে পারেন।

আমরা সকলেই জানি কাঁঠালের বীজে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট যা আমাদের শরীরের জন্য খুব উপকারী। এছাড়াও খনিজ লবণ, ফাইবার এবং ভিটামিন সবই রয়েছে কাঁঠালের বীজে। ডায়বেটিস বা হার্টের সমস্যার জন্য বিশেষ উপকারী এই ফলের বীজ। আমরা সকলেই জানি কাঁঠালের বীজকে সংরক্ষণ করা হয় রোদে শুকিয়ে। তবে করোনার আমাদের সকলেরই খাওয়ারের ধরনের এসেছে পরিবর্তন। তাই বাড়িতে একেবারে দোকানের মতোই খুব সহজ উপায়ে বানিয়ে ফেলুন এই চপ কাটলেট। তাহলে চলুন দেখা যাক কি কি লাগছে এই কাটলেট বনানোর জন্য।

উপকরণ:

কাঁঠালের বীজ : ২০০ গ্রাম
আমআদা (মিহি করে কুচানো): আধ চা চামচ
চালের গুঁড়ো: ২ টেবিল চামচ
পেঁয়াজ (মিহি করে কুচিয়ে): আধ কাপ
ময়দা: ১ টেবিল চামচ
হলুদ গুঁড়ো: আধ চা চামচ
আদা বাটা: ১ চা চামচ
আমচুর গুঁড়ো: ১ চিমটে
ভাজা মশলা অর্থাৎ জিরে, শুকনো লঙ্কা, মৌরি একসঙ্গে শুকিয়ে খোলায় ভেঁজে নেবেন: ১ চা চামচ
নুন :স্বাদ অনুযায়ী
সাদা তেল: আধ কাপ

আরো পড়ুন: শিবরাত্রির উপোস করে কি খাবেন বুঝতে পারছেন না? বানিয়ে ফেলুন এই সাবুদানার ক্ষীর! রইল রেসিপি

প্রণালি:

প্রথমেই এক চুমটে নুন মাখিয়ে প্রেসার কুকারে সিদ্ধ করে নিন কাঁঠালের বীজগুলি। এরপর ছড়িয়ে নিন বাইরের খোসাটা। খোসা ছাড়ানো কাঁঠালের বিজগুলি ভালো করে মেখে রাখুন। এরসঙ্গেই আমআদা কুচি, পেঁয়াজ কুচি, চালের গুঁড়ো আর ময়দা নিয়ে ভালো করে মেখে নিন। এরপর আদাবাটা, ভাজা মশলা, হলুদ গুঁড়ো, আমচুর বাটা সব দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। এবার মিশ্রণটি ছোট ছোট আকারে অর্থাৎ কাটলেটের বা চপের আকারে করে নিন। এরপর নন স্টিক কড়াইয়ে তেল দিয়ে ভেজে নিন। এদিক ভাজা হয়ে গেলে উল্টো করে ভালো করে ভেজে নিন। এবার কাসুন্দি সহকারী গরম গরম পরিবেশন করুন ফলের বীজের কাটলেট।

Ruhi Roy

রুহি রায়, গণ মাধ্যম নিয়ে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর পাশ। সাংবাদিকতার প্রতি টানে এই পেশায় আসা। বিনোদন ক্ষেত্রে লেখায় বিশেষ আগ্রহী। আমার লেখা আরও পড়তে এখানে ক্লিক করুন।